কুড়িগ্রাম রবিবার, ১৩ Jun ২০২১, ০৬:০০ পিএম

শিরোনাম
  Motivate Bhurungamari’র কার্যনির্বাহী কমিটি ঘোষণা       ফুলবাড়ীতে বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ       নিম্নমানের কাজ করায় স্কুল ভবনের ড্রপ ওয়াল ভেঙ্গে দিলেন প্রশাসন       বিএসএফ’র গুলিতে আহত ভারতীয় কিশোর কুড়িগ্রামে চিকিৎসাধীন       কুড়িগ্রামে লকডাউনে বিপাকে শ্রমজীবী       কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে শিশু ধর্ষণের চেষ্টা, থানায় মামলা       কুড়িগ্রামে চোরাকারবারীর হাতে ভারতীয় বিএসএফ আহত, সীমান্তে পতাকা বৈঠক       চিলমারী আ’লীগ কার্যালয় ভাঙচুরের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন       কুড়িগ্রামে স্বাস্থ্যবিধি মানতে মাঠে জেলা প্রশাসন       চিলমারীতে বিনামূল্যে পিপিআর রোগের টিকাদান ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন    
 

চিলমারীতে ইট ভাটায় জমি না দেয়াকে কেন্দ্র করে মারামারি আহত- ২

প্রকাশিত সময়: জানুয়ারি, ২৯, ২০২১, ০৮:২৭ অপরাহ্ণ  

 
 

চিলমারী প্রতিনিধি:
কুড়িগ্রামের চিলমারীতে ওয়ারেছ ব্রিকস ইট ভাটায় আবাদি জমি লিজ না দেয়াকে কেন্দ্র করে মারপিটের ঘটনা ঘটেছে। এতে ঘটনাস্থলে ২ জন আহত হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে চিলমারী উপজেলার বালাবাড়ী হাট এলাকায়।

জানা যায়, বালাবাড়ী হাট রসুলপুর এলাকায় অবৈধ ইট ভাটা তৈরি করে ডব্লিউবিসি নামক একটি প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানের আশেপাশের অনেক জমি লিজ নিলেও সাইফুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি তার জমি লিজ দিতে রাজি হয়নি এতে করে ইটভাটার মালিক প্রায় সময় ঐ জমিকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন সময় বিভিন্নভাবে কথা কাটাকাটি করে আসছিল। এরই মাঝে গত ১২-০১-২০২১ মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় সাইফুল ইসলাম তার নিজ জমি থেকে মাটি নিয়ে বাড়ীভিটা উচুঁ করার জন্য মাটি কাটা শুরু করে ঠিক সেই সময় ভাটার মালিক ওয়ারেছ এবং ভাটার ম্যানেজার শাহ আলমসহ সাইফুল ইসলামের সাথে আবারো জমি নিয়ে কথার কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ইট ভাটার ম্যানেজার ক্ষিপ্ত হয়ে সাইফুল ইসলামের উপর ঝাঁপিয়ে পরে। এসময় সাইফুল এর স্ত্রী আছমা বেগম এগিয়ে এলে তারা লাঠিসোঠা নিয়ে তাকে মারপিট করে এবং মাথার চুল টেনে ছিঁড়ে দেয় এতে ঘটনাস্থলে আহত হন আছমা বেগম। পরে এলকাবাসী এগিয়ে এলে, আছমা বেগম ও সাইফুল ইসলামকে ইট ভাটায় পুড়িয়ে মারার হুমকী দিয়ে সেখান থেকে তাৎক্ষনিকভাবে চলে যান। অসুস্থ্য আছমা বেগমকে চিলমারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিতে গেলে ওয়ারেছ গং  হাসপাতাল পর্যন্ত পৌঁছাতে দেয়নি। পরে হামির বাজার এলাকা থেকে আছমা বেগমের ভাই এসে তাকে উলিপুর হাসপাতালে ভর্তি করায়।

এলাকাবাসী মোরশেদ আলী জানায়, ঘটনার পরপরই এসে দেখি স্বামী স্ত্রী অসুস্থ্য। আর ৩ জন লাঠি নিয়ে মারপিট করার জন্য আসছে। শাহাদত বলেন, জমির মাটিকাটা নিয়ে দ্বন্ধ বাজে তখন ওয়ারেছসহ ৩ জন বেদম মারপিট করে।

মল্লিকা (৭০) জানায়, সাইফুলের সাথে মারামারি কাটাকাটি হউক কিন্তু মহিলা মানুষকে কেউ এভাবে মারে? আমরা এর সঠিক বিচার চাই।

এ ব্যাপারে সাইফুল ইসলাম চিলমারী মডেল থানায় অভিযোগ করতে গেলে অভিযোগ নেয়নি চিলমারী থানা পুলিশ। চিলমারী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আমিনুল ইসলাম জানান, আছমা বেগমের পক্ষ থেকে থানায় কোন অভিযোগ করা হয়নি।

পরে এলাকাবাসী গ্রাম্য শালিশের মাধ্যমে মিমাংসা করার জন্য একটি মিটিং ডাকে। সেই মিটিংয়ে ইট ভাটার মালিক ওয়ারেছ উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও উপস্থিত হননি তিনি।

এলাকার ইউপি সদস্য ইউনুছ আলী বলেন, আমরা সালিশের মাধ্যমে মিমাংসা করার চেষ্টা করছিলাম, কিন্তু ইট ভাটার মালিক তা মানতে চাননি। তিনি তার ভাটার রুমে ২ থেকে ৩ জন নিয়ে মিমাংসার কথা বলে। পরে আমি সেখান থেকে চলে আসি।

পরে ভুক্তভোগি পরিবার কোন উপায় না পেয়ে কুড়িগ্রাম জজ কোর্টে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়ের করার পর নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে পরিবারটি। এব্যাপারে ইটভাটার মালিক ওয়ারেছের সঙ্গে কথা হলে তিনি মারপিট বা ইট ভাটায় পুড়িয়ে মারার বিষয়টি অস্বীকার করেন।


ট্যাগঃ

   
 
আরও পড়ুন
 
 
Top