কুড়িগ্রাম বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:০৪ এএম

শিরোনাম
  ছয়মাস থেকে পলিথিনের নীচে বসবাস ছালমা বেগমের       উলিপুরে PSDO এর বিনামূল্যে ব্লাড গ্রুপ নির্ণয় ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন       কৃত্রিম জলাবদ্ধতায় অনিশ্চিত আমন আবাদ, খাল খননের দাবী       আমন চারার সংকটে কুড়িগ্রামের কৃষকেরা       বন্যার্তদের পাশে রাশিদা আওয়াল ফাউন্ডেশন       ভূরুঙ্গামারীতে রাস্তা থেকে কেটে নেয়া গাছ উদ্ধার       ভুরুঙ্গামারী হাসপাতালে সেনাবাহিনীর করোনা উপকরণ সামগ্রী হস্তান্তর       চিলমারীকে দীর্ঘমেয়াদী বন্যার কবল থেকে রক্ষার্থে মানববন্ধন       ভূরুঙ্গামারীতে “নো মাস্ক নো ট্রাভেল” ক্যাম্পেইন       সেচ্ছাসেবী সংগঠনের সাথে যৌথভাবে কাজ করবে “ভূরুঙ্গামারী উন্নয়ন সংস্থা”    
 

আগলে রেখেছেন যিনি

প্রকাশিত সময়: মে, ১০, ২০২০, ০১:০৮ অপরাহ্ণ  

 
 

আসমাউল হুসনা নিশা:
মাকে নিয়ে যা বলবো কম হয়ে যাবে। বাবা পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেছেন প্রায় ৪বছর। বাবা কর্মসূত্রে সবসময় বাড়ির বাইরে থাকতেন। খুব বেশি সময় পাওয়া হয়নি বাবা’কে। আমরা মা’র সাথে থাকতাম, মা’কেই সামলাতে হতো ঘর-বাহিরে, আমাদের স্কুল প্রাইভেট সবদিক দেখতে হতো তাকে। অসুস্থতা কিংবা ক্লান্তি কিছুই তাকে ছুঁতে পারতো না। মা’কে কখনও অসুস্থতার অজুহাতে কোনো কাজ এড়াতে দেখিনি, সে গাদাগাদা রান্না করতেও কখনও ক্লান্ত হতো না। সাধ করে একা ২টা দিন কোথায়ও গিয়ে যে ঘুরে আসবে, সেটাও তার কপালে জুটে না কখনও। তার কোনো একার ইচ্ছে নেই, নেই কোনো শখ। ভোর ৬টা থেকে শুরু করে রাত ১২-০১টা পর্যন্ত চলতেই থাকে মেশিনের মত। তার পরেও কত অভিযোগ, অভিমান মা এটা করনি কেন? ওটা হয়নি কেন? কিন্তু মা’র কি কোনো অভিযোগ নেই? হয়তো আছে তবে বলতে পারে না, নয়তো বলে আমাদের কষ্ট দিতে চায় না। মা’র তুলনা শুধুই মা, যিনি আমাদের পুরো পরিবারটাকে আগলে রেখেছেন। আমার কাছে আমার মা “Super Mom”। মা’র আদরযত্নে বড় হচ্ছি কিন্তু কখনও বলা হয়নি, মা তোমায় কতটা ভালোবাসি।


ট্যাগঃ

   
 
আরও পড়ুন
 
 
Top